আলোকবিজ্ঞানে চিহ্নের প্রথা

Share with associates

যখন কোনো আয়না বা লেন্সের সামনে একটি লক্ষ্যবস্তু রাখা হয়, তখন একটি বিম্ব গঠিত হতে পারে (উত্তল লেন্স ও অবতল দর্পণের প্রধান ফোকাসে লক্ষ্যবস্তু রাখলে তার কোনো বিম্ব গঠিত হয় না)। বিম্বটি বাস্তব না অবাস্তব হবে তা এবং এর অবস্থান নির্ভর করে বস্তুর দূরত্বের উপর, লেন্স বা দর্পণের (আয়নার অপর নাম দর্পণ) ধরনের উপর এবং তাদের জ্যামিতিক গঠনের উপর। এখন, লক্ষ্যবস্তুর দূরত্ব, বিম্বের দূরত্ব ও ফোকাস দূরত্বের মধ্যকার সম্পর্ক স্থাপনের জন্য চিহ্নের একটি প্রথা আবশ্যক। আলোকবিজ্ঞানে চিহ্নের বেশ কয়েকটি প্রথা রয়েছে, যেমনঃ কার্টেসিয়ান প্রথা, বাস্তব ধনাত্মক প্রথা প্রভৃতি। এখানে আমরা বাস্তব ধনাত্মক প্রথা আলোচনা করবো। এই প্রথা অনুসারেঃ

(১) প্রতিটি দূরত্ব মাপতে হবে প্রতিফলক বা প্রতিসারক তলের মেরু হতে অথবা লেন্সের আলোক কেন্দ্র হতে।

(২) সকল বাস্তব দূরত্ব ধনাত্মক। এখানে, ‘বাস্তব’ বলতে বুঝায়, আলোকরশ্মি প্রকৃতপক্ষে যে দূরত্ব অতিক্রম করেছে।

(৩) সকল অবাস্তব দূরত্ব ঋণাত্মক। এখানে, ‘অবাস্তব’ বলতে বুঝায়, আলোকরশ্মি প্রকৃতপক্ষে যে দূরত্ব অতিক্রম করে নি, কিন্তু অতিক্রম করেছে বলে মনে হয়।

উপর্যুক্ত প্রথা অনুসারে, নিম্নলিখিত সিদ্ধান্তসমূহে উপনীত হওয়া যায়ঃ

(১) প্রতিফলন বা প্রতিসরণের ফলে সৃষ্ট অভিসারী রশ্মিগুচ্ছের দ্বারা যে বিম্ব গঠিত হয়, সে বিম্ব অর্থাৎ বাস্তব বিম্বের দূরত্ব ধনাত্মক। অনুরূপ কারণে অবাস্তব বিম্বের দূরত্ব ঋণাত্মক। কারণ এ ধরনের বিম্ব গঠনে প্রতিফলিত বা প্রতিসরিত রশ্মিসমূহের অভিসারিতা ঘটে না, বরং অপসারিতা ঘটে। অর্থাৎ প্রতিফলন বা প্রতিসরণের পর ঐ রশ্মিসমূহ পরস্পর হতে দূরে সরে যায়। সত্যি বলতে, এরূপ ক্ষেত্রে কোনো বিম্বই গঠিত হয় না, কিন্তু প্রতিফলিত বা প্রতিসরিত রশ্মিসমূহ আমাদের চোখে এমনভাবে প্রবেশ করে যে, আমরা একটি অলীক (যেটার প্রকৃত অস্তিত্ব নেই) বিম্ব দেখতে পাই, যা দেখতে আংশিকভাবে বা সম্পূর্ণরূপে মূল লক্ষ্যবস্তুর ন্যায়। এ কারণে অবাস্তব বিম্ব পর্দায় ফেলা যায় না, বাস্তব বিম্ব ফেলা যায়।

(২) প্রধান অক্ষের সমান্তরাল একগুচ্ছ আলোকরশ্মি অবতল দর্পণে প্রতিফলিত হয়ে বা উত্তল লেন্সে প্রতিসরিত হয়ে প্রধান অক্ষের উপর কোনো বিন্দুতে প্রকৃতপক্ষে মিলিত হয় বা ফোকাস করে, এ কারণে এ দু’টির ফোকাস দূরত্ব ধনাত্মক। অন্যথা ঘটে উত্তল দর্পণ ও অবতল লেন্সের ক্ষেত্রে, এ কারণে এ দু’টির ফোকাস বিন্দু ও ফোকাস দূরত্ব ঋণাত্মক। অনুরূপ কারণে, যখন লঘুতর হতে ঘনতর মাধ্যমে আলোর প্রতিসরণ ঘটে, তখন অবতল ও উত্তল তলের বক্রতার ব্যাসার্ধ যথাক্রমে ঋণাত্মক ও ধনাত্মক হয়। অপরপক্ষে, যখন ঘনতর হতে লঘুতর মাধ্যমে আলোর প্রতিসরণ ঘটে, তখন অবতল ও উত্তল তলের বক্রতার ব্যাসার্ধ যথাক্রমে ধনাত্মক ও ঋণাত্মক হয়।

(৩) দর্পণ, লেন্স বা প্রতিসারক তলের যে পাশ হতে আলোকরশ্মিগুচ্ছ এসে তাতে আপতিত হচ্ছে, লক্ষ্যবস্তু সে পাশে অবস্থিত হলে, এরূপ বস্তুর দূরত্ব ধনাত্মক। কিন্তু বস্তু যদি অপর পাশে অবস্থিত হয়, তাহলে এ ধরনের লক্ষ্যবস্তুর দূরত্ব ঋণাত্মক এবং লক্ষ্যবস্তুটিকে তখন বলা হয় অবাস্তব বা অসদ বা অলীক লক্ষ্যবস্তু। উদাহরণস্বরূপঃ নিম্নের সমঅক্ষীয় উত্তল লেন্সদ্বয়ে আলোর প্রতিসরণ বিবেচনা করা যাক।

উভয় লেন্সের প্রধান অক্ষ একই

A লেন্সটির বামপাশে এর প্রধান অক্ষের উপর একটি বিস্তৃত লক্ষ্যবস্তু দাঁড়িয়ে আছে। A এর দ্বারা গঠিত বিম্ব B লেন্সটির জন্য লক্ষ্যবস্তুরূপে ক্রিয়া করবে। তবে এখানে লক্ষ্যণীয় যে, B লেন্সের উপর আলোকরশ্মি যে পাশ হতে আপতিত হচ্ছে, এর লক্ষ্যবস্তু সে পাশে নেই। তাই এ লেন্সের জন্য লক্ষ্যবস্তুর দূরত্ব ঋণাত্মক এবং এরূপ লক্ষ্যবস্তুকে ‘অলীক লক্ষ্যবস্তু’ বলে।

(৪) লেন্স বা প্রতিসারক তলে প্রতিসরণের পর অথবা দর্পণে প্রতিফলন ঘটার পর আলোকরশ্মি উক্ত লেন্স বা দর্পণের যে পাশে থাকার কথা, বিম্ব যদি সেই একই পাশে গঠিত হয়, তবে এরূপ বিম্বকে বাস্তব বা সদ বিম্ব বলা হবে, আর এরূপ বিম্বের দূরত্ব ধনাত্মক। অন্যথায়, গঠিত বিম্বটি অলীক বা অবাস্তব এবং এরূপ বিম্বের দূরত্ব ঋণাত্মক। উদাহরণস্বরূপ, উপর্যুক্ত চিত্রটি বিবেচনা করা যেতে পারে।

প্রতিসরণের সময় লেন্সের মধ্য দিয়ে আলোকরশ্মিগুচ্ছ অতিক্রম করে গেছে, তাই এখন সেগুলো লেন্সের অপর পাশে থাকবে। A লেন্সের ক্ষেত্রে প্রতিসরণের পর প্রতিসৃত রশ্মিসমূহ লেন্সের যে পাশে অবস্থান করছে, বিম্বও সেই পাশে গঠিত হয়েছে। তাই এক্ষেত্রে গঠিত বিম্ব বাস্তব।

B লেন্স এর ‘লক্ষ্যবস্তু’ যদি এর ফোকাস দূরত্বের মধ্যে অবস্থিত হয়, তাহলে এটি অবাস্তব বিম্ব গঠন করবে, যা অবস্থান করবে লেন্সের যে পাশে লক্ষ্যবস্তু অবস্থিত, সেই একই পাশে। এমনটা হওয়া উচিত নয়, কারণ প্রতিসরণের সময় আলোকরশ্মি তো লেন্সের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করে চলেই যায়। তাই এরূপে গঠিত বিম্ব অবাস্তব বা অলীক।

এবার দর্পণে আলোর প্রতিফলন বিবেচনা করো। যেহেতু দর্পণের মধ্য দিয়ে আলোকরশ্মিসমূহ অতিক্রম করতে পারে না, তাই প্রতিফলনের আগে ও পরে দর্পণের সামনেই রশ্মিসমূহ অবস্থিত। অবতল দর্পণের ক্ষেত্রে দর্পণের সামনে বিম্ব গঠিত হতে পারে, যদি লক্ষ্যবস্তুর অবস্থান হয় ফোকাস বিন্দুর বাইরে। এরূপ ক্ষেত্রে বিম্বের দূরত্ব ধনাত্মক ও বিম্বটিকে বলা হবে বাস্তব বা সদ। তবে দর্পণের পেছনেও বিম্ব গঠিত হতে পারে, অর্থাৎ প্রতিসরিত বা প্রতিফলিত হবার পর আলোকরশ্মিসমূহ চোখে এমনভাবে প্রবেশ করে যেন লক্ষ্যবস্তুর ন্যায় কিছু একটা (বিম্ব) দর্পণের পেছনে অবস্থিত। দর্পণের পেছনে তো প্রতিফলিত বা প্রতিসরিত আলোকরশ্মিসমূহ যায় না, তাই এ ধরনের বিম্ব অলীক এবং এর দূরত্ব ঋণাত্মক।

Share with associates

Leave a Reply

Your email address will not be published.